স্বদেশী ‘টেররিস্ট’

 

আজকে এটিএনবাংলায় (৬ জানুয়ারি) সিনেমা দেখাইতেছিলো। নায়ক কয়েক সিন পরপর ভিলেইনের সাথে কনফ্রন্টেশনে যায় আর চ্যালেঞ্জ ছুইড়া দিয়া বলে- “আগে আমি ছিলাম গুন্ডা; এখন আমি গুন্ডা দি টেররিস্ট টেররিস্ট টেররিস্ট [প্রথম টেররিস্ট বলার পরের দুইবার প্রতিধ্বনি]।” Continue reading

বাজার সঙ্কোচন, ছবি কমতে থাকা ও জাজ-টাইগারের দায়

অমুক ছবি ব্লকবাস্টার, তমুক ছবি ফ্লপ। ভক্তকুলের এই ভারডিক্টের কারণ খুবই স্পষ্ট, বাংলাদেশে কোনো অফিসিয়াল বক্স অফিস নেই। তাই যে যার মতো ছবিকে হিট-ফ্লপ বানাচ্ছে। নতুন বিনিয়োগ করতে চাওয়া প্রযোজকরাও এই ফেসবুকীয় সার্কাস দেখে কনফিউজড, অমুক নায়ক নিলে বোধহয় ব্যবসা জমবে, তমুক নায়কের ফ্যানবেস ভালো। আবার কারো প্রচারণার ধরনে মনে হয় পার্শ্ববর্তী দেশের বাতিল সুপারস্টার ও ফ্লপ নায়কদের কোটি অর্ধ-কোটি টাকা দিয়ে কাস্ট করলে হয়তো আমার ছবি সব রেকর্ড ভেঙে গুড়িয়ে দিবে। Continue reading

সময়ের গল্প-মুখোশ মানুষ

টিকেট কাউন্টারের ভেতর থেকে সেলসম্যান মাথা এগিয়ে দিল- ম্যাডাম, আপনার সাথে কী কোন বাচ্চা আছে? আমি অবাক বিস্ময়ে না সূচক মাথা নাড়লাম- বাচ্চাতো দূরে, আমার সাথে কেউ নাই। তিনি ইতস্থত করলেন- আসলে সিনেমাটা এডাল্টদের জন্যতো, তাই। আমি তাকে আস্বস্ত করলাম – আমি মুভি আলোচক, প্রমো দেখেই এসেছি। কোন অসুবিধা নেই, একটা টিকেট দিন একদম মিডেলে।

বৃহষ্পতিবার বিকেল, কিন্তু উপচে পড়া ভীর নেই হলে। ইউটিউবে মুখোশ মানুষ নিয়ে যেভাবে নিন্দার ঝড় উঠেছে তাতে বোধ করি বাঙালী ভয় পেয়ে গেছে, তাই হল ভর্তি দর্শক নেই। জোড়াদের সংখ্যাই বেশী। যে দেশে বাংলা সিনেমার নায়িকার মুখে শোনা যায়- “আমি খুব সেক্সি এন্ড হট,আমাকে দেখে তুমি পাগল হয়ে যাবে” এর চাইতে এডাল্ট সিনেমা আর কি হতে পারে! Continue reading

মুখোশ মানুষ সিনেমার যত ভুল

২০১৬ সালের সর্বশেষ সিনেমা “মুখোশ মানুষ” একটি মধ্যম মানের ইরোটিক সাইবার ক্রাইম থ্রিলার মুভি। ইয়াসির আরাফাত জুয়েল পরিচালিত এই সিনেমার ৩টি ভুল আমাদের চোখে পড়েছে। Continue reading

কেয়ামত থেকে কেয়ামত : পপুলার ও ক্লাসিক

ঢালিউডের সিনেমায় যে সিনেমাগুলো একটা বাঁক পরিবর্তনে অবদান রেখেছে এবং নতুন সময়ের সূচনা করেছে তাদের মধ্যে অন্যতম সেরা সিনেমা ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত।’ সিনেমাটি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে শেষ থেকে যদি শুরু করা যায় তবে সেটা হবে উত্তম কাজ। গাজী মাজহারুল ইসলামের দরাজ কণ্ঠে বলা কথাগুলো -‘এই প্রেম অমর, অসীম। এই প্রেমের সীমানা কেয়ামত থেকে কেয়ামত।’ কথাগুলের মধ্যে লুকিয়ে অাছে ক্লাসিক দিকটি যা প্রেমের জন্য সব দেশকাল পাত্রে ঠিক। অাপনি অামি লাইলী-মজনু, শিরি-ফরহাদ, অানারকলি-সেলিম, রোমিও-জুলিয়েট তাঁদের উদাহরণ টানলে তারাও মানুষের হৃদয়ে অমর প্রেমের জন্য স্মরণীয়। প্রেমের জন্য জীবন উৎসর্গের ঘটনাকে কেন্দ্র করে তাই ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ একটি অাদর্শ প্রেমের সিনেমা। জীবন উৎসর্গ এ সিনেমার কেন্দ্র। Continue reading

নকলের ধকল-২০১৬

২০১৫ সাল পর্যন্ত নকল বাংলাদেশী সিনেমার সমারোহ দেখে সাধারণ দর্শকদের মনে একটাই কামনা ছিল ২০১৬ তে এসে যেন আর “দুই টিকিটে এক সিনেমা” দেখতে না হয়। নকল গল্পে সিনেমা নির্মাণের হার কিছুটা কমলেও তা কিন্তু বছরের মোট মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমার এক-তৃতীয়াংশ। আসুন এক নজরে দেখে নেই ২০১৬ সালে আমরা কি কি নকল/রিমেক/অনুপ্রাণিত গল্পের সিনেমা দেখেছি এবং সেগুলোর পরিণতি… Continue reading

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (২০০২-২০০৪)

২০০২ :  মরমী কবি হাছন রাজার জীবনীনির্ভর ছবি চাষী নজরুল ইসলামের ‘হাছন রাজা’ সর্বোচ্চ ৭টি শাখায় পুরস্কার অর্জন করে। প্রখ্যাত পরিচালক কাজী হায়াতের জাতীয় পুরস্কার লাভ করেন ইতিহাস ছবির জন্য,পাশাপাশি তার ছেলে কাজী হায়াত একই ছবির জন্য প্রথমবারের মতো জাতীয় পুরস্কার লাভ করেন। Continue reading

যোদ্ধা : মাল্টিস্টারার ফুল প্যাকেজ কমার্শিয়াল

একটা সিনেমা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে প্রথমেই তার অফিসিয়াল পোস্টার নিয়ে কথা বলতে হয়। অফিসিয়াল পোস্টার লঞ্চ করতে অাজকের ডিজিটাল ঢালিউডে অনেক পলিসি অাছে। শুধু পোস্টারই বা কেন! এখন টিজার, ট্রেলার অারো অনেক পলিসি অাছে। ৩৫ মিলিমিটারের সিনেমার সময় নিকট অতীতে ‘যোদ্ধা’ সিনেমার অফিসিয়াল পোস্টারে একটা বিশেষ বুদ্ধিদীপ্ত টেকনিক অ্যাপ্লাই করেছিলেন সময়ের থেকে এগিয়ে থাকা পরিচালক শহীদুল ইসলাম খোকন। লাল অাবরণের পোস্টারের গায়ে লেখা ‘এটি একটি সিনেমার পোস্টার”। ‘যোদ্ধা’ নামটি লাল অক্ষরের এবং তার প্রতীকী অর্থ অাসে যুদ্ধ থেকে যোদ্ধা হতে হয় তাই রক্তের লাল রং একটা সূক্ষ্ম চিন্তা এখানে। সমাজ ও রাজনীতির সে যোদ্ধা লড়াকু নায়ক রুবেল। Continue reading

‘অভিমান’ মুক্তিতে দেশপ্রেমের প্রতিযোগিতা নেই

ভারতীয় সিনেমা ‘অভিমান’ মুক্তি পাচ্ছে ৩০ ডিসেম্বর। এর আগে ‘কেলোর কীর্তি’র মুক্তির সময় দেশপ্রেম দেখানোর প্রতিযোগিতায় নামতে দেখেছিলাম সবাইকে।কিন্তু এখন সবাই নিশ্চুপ। কারণগুলো হলো— Continue reading

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১৯৯৯-২০০১)

১৯৯৯ : ব্রিটিশ ভারত ভাগ নিয়ে বাংলাদেশের একমাত্র চলচ্চিত্র তানভীর মোকাম্মেলের ‘ চিত্রা নদীর পাড়ে’ ও হুমায়ূন আহমেদের ‘ শ্রাবণ মেঘের দিন’ যৌথভাবে সর্বোচ্চ ৭ টি শাখায় জাতীয় পুরস্কার অর্জন করে। ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’ ৭ টি শাখায় পুরস্কৃত হলেও হুমায়ূন আহমেদ পুরস্কৃত হননি। আফসানা মিমি,শাওনের সঙ্গে প্রতিদন্দ্বিতা করে প্রথম সিনেমায় সিমলা জাতীয় পুরস্কার জিতেন।অন্যদিকে মান্নার সাথে প্রতিদন্দ্বিতা করে জনপ্রিয় টিভি অভিনেতা জাহিদ হাসান প্রথম ও একমাত্র জাতীয় পুরস্কার অর্জন করেন।এই বছর সেরা গায়িকা, শিশুশিল্পীসহ কয়েকটি শাখায় পুরস্কার দেওয়া হয়নি। এই বছর ১৮টি শাখায় পুরস্কার প্রদান করা হয়- Continue reading