ফেরদৌস

নৃত্য পরিচালক আমির হোসেন বাবু পরিকল্পনা করেছিলেন নৃতবিষয়ক একটি চলচ্চিত্র পরিচালনা করবেন। ছবির নাম হবে ‘নাচ ময়ূরী নাচ’। ছবিতে নায়ক চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি একজনকে মনোনীতও করেছিলেন, কিন্তু চলচ্চিত্রটি নির্মান করা হয়ে উঠে নি। এসময় জনপ্রিয় চলচ্চিত্র অভিনেতা সালমান শাহ’র অকাল প্রয়ানে চলমান বেশ কিছু চলচ্চিত্রের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এর মধ্যে একটি ছিল ছটকু আহমেদ পরিচালিত ‘বুকের ভেতর আগুন’ চলচ্চিত্রটি। গল্পে কিছুটা পরিবর্তন করে অসমাপ্ত কাজ শেষ করার উদ্যোগ নেন ছটকু আহমেদ আর এভাবেই সালমান শাহ’র স্থলাভিষিক্ত হয়ে চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু করেন আমির হোসেন বাবুর হাত ধরে চলচ্চিত্র জগতে আসা তরুণ ফেরদৌস (Ferdous)।

বুকের ভেতর আগুন চলচ্চিত্রের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করলেও প্রথম একক নায়ক হিসেবে ফেরদৌসের যাত্রা শুরু হয় অঞ্জন চৌধুরী পরিচালিত ‘পৃথিবী আমারে চায় না’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে। চলচ্চিত্রে অভিনয়ে দেশের গন্ডি পেরিয়ে কলকাতার চলচ্চিত্রে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন তিনি। বলিউডের একটি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন ফেরদৌস, ছবির নাম ‘মিট্টি’। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার সহ আরও অনেকগুলো পুরস্কার জিতে নিয়েছেন, দেশে বিদেশে সম্মান কুড়িয়েছেন।

চলচ্চিত্রে অভিনয়ের আগে ফেরদৌস একজন র‌্যাম্প মডেল হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ফ্যাশন ডিজাইনার বিবি রাসেলের হাত ধরে র‌্যাম্প জগতে যাত্রা শুরু করেন ফেরদৌস। নব্বইয়ের দশকের শুরুতে বেশ কিছু বড় ফ্যাশন শো’র র‌্যাম্পিং এ অংশ নিয়েছিলেন ফেরদৌস। বর্তমানে চলচ্চিত্রের পাশাপাশি বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবেও কাজ করছেন তিনি।

অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু করলেও ফেরদৌস বর্তমানে ছবি প্রযোজনাও করছেন। তার প্রতিষ্ঠান ‘সিনেমা স্কোপ’ এর প্রযোজনায় দুটি চলচ্চিত্র নির্মিত। এদের একটি ইমতিয়াজ নেয়ামুলের পরিচালনায় ‘এক কাপ চা’ নির্মানাধীন এবং অন্যটি বাসু চ্যাটার্জীর পরিচালনায় ‘হঠাৎ সেদিন’ ২০১৩ সালে মুক্তি পেয়েছে। উল্লেখ্য, বাসু চ্যাটার্জী পরিচালিত ‘হঠাৎ বৃষ্টি’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেই ফেরদৌস কলকাতা জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। দুই বাংলায় জনপ্রিয়তা অর্জন করা প্রসঙ্গে বাংলামেইলের এক প্রশ্নের জবাবে ফেরদৌস নিজেকে সৌভাগ্যবান দাবী করেন এবং জানান, জন্মভূমির প্রতিই তার বেশী টান, তবে তিনি দুই বাংলায়ই জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে চান।

কলকাতার ছবিতে অভিনয় প্রসঙ্গে দৈনিক জনকন্ঠের সাথে সাক্ষাতাকরে তিনি বলেন- ‘আমাদের দেশের চেয়ে কলকাতার বাজার অনেক বড়। ওখানে অভিনয় করেও আমি স্বাচ্ছন্দ বোধ করি। তবে আমাদের দেশের পরিচালকদের মতো ওখানের পরিচালকরা নয়। তারা সবকিছু বোঝে। ওখানে আমাদের দেশের ছবির মতো এত নকল ছবি হয় না’। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের বর্তমান অবস্থান নিয়েও ফেরদৌস বলেন, ‘একটা সময় ছিল চলচ্চিত্রের জন্য অস্থিরাবস্থা। সেই সময় আমরা অতিক্রম করেছি। আমাদের যে কজন ভালো পরিচালক রয়েছে তারা এত বেশি বোঝেন যে, সত্যজিৎকেও তারা হার মানাতে চাইবেন। তাছাড়া আমাদের দেশের চলচ্চিত্রের জন্য ভালো মানের গল্প তৈরি হয়না। যাও হয় তা বিভিন্ন বলিউড ছবির গল্প থেকে নকল করা। তাই আমাদের দেশের চলচ্চিত্রের উন্নতি করতে হলে আগে ভালো চিত্রনাট্য তৈরি করতে হবে। একটি ইন্ডাস্ট্রি রান করতে হলে যা প্রয়োজন তা এখানে নেই। তারপরও সদ ইচ্ছা থাকলে এর মাঝেই ভালো কিছু করা সম্ভব’।

২০১২ সালের জানুয়ারী মাসে বাংলানিউজ২৪ এর সাথে এক সাক্ষাতকারে ফেরদৌস জানান কুয়াকাটা এবং সেন্টমার্টিনে তিনি দুটি রিসোর্ট গড়ে তোলার কাজ শুরু করেছেন। সেন্টমার্টিনের রিসোর্টটি প্রখ্যাত উপন্যাসিক হুমায়ূন আহমেদের সাথে মিলে তার মালিকানাধীন জমিতে তৈরী। একই সাক্ষাতকারে ফেরদৌস জানান হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি তার প্রিয় অভিনেত্রী এবং তার সাথে একবার অভিনয় করার সুযোগ পেলে তিনি ধন্য হতেন।

ফেরদৌসের ব্যক্তিগত লাইফস্টাইল সম্পর্কে জানা যায় অজানা সব তথ্য। যেমন পোশাক আশাকের ক্ষেত্রে ট্রু রিলিজিওন, ডি অ্যান্ড জি, আরমানি, এক্সপ্রেশনস ও স্পাইকার ব্র্যান্ডের জিনস তার পছন্দ। আর আরমানি, গুচির সাধারণ নকশার রংচটা ধরনের টি-শার্ট সব সময় পরেন। ভাসাভি, নাবিলা, মান্যবর বা মানিশ মালহোত্রার বিশেষ নকশার পাঞ্জাবি যেমন পরেন, আবার পরিবেশ বুঝে সুতি বা খদ্দরের পাঞ্জাবিও পরে থাকেন। ফরমাল অনুষ্ঠানে প্রিন্স কোট বেছে নিচ্ছেন কিছুদিন ধরে। বাংলাদেশে সানমুনের দূত তিনি। সানমুনের বাইরে আরমানি ও গুচির স্যুট-কোট পরেন। ফেরদৌসের রামিম রাজ নামের একজন নিজস্ব ডিজাইনার আছেন। ব্র্যান্ডের বাইরে বেশির ভাগ পোশাকের নকশা তিনি করে থাকেন। নাইকি, রিবোক ও অ্যাডিডাসের রং-বেরঙের স্নিকারস পরতে ভালোবাসেন। নটিকা, ইসে মিয়াকে, গুচি ও ব্ল্যাক ব্র্যান্ডের সুগন্ধি ঘুরে-ফিরে ব্যবহার করেন।

পারিবারিক জীবনে বিবাহিত ফেরদৌসের স্ত্রী তানিয়া ফেরদৌস একজন বৈমানিক। পুত্র নুজহাত ফেরদৌস এবং কন্যা নুজরান ফেরদৌসকে নিয়ে তাদের সুখের সংসার।

 

উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র

ব্যক্তিগত তথ্যাবলি

পুরো নাম ফেরদৌস আহমেদ
ডাকনাম ফেরদৌস
জন্ম তারিখ জুন ৭, ১৯৭২
জন্মস্থান ঢাকা।

কর্মপরিধি