বুলবুল আহমেদ

বাংলা চলচ্চিত্রের মহানায়ক খ্যাত বুলবুল আহমেদ ১৯৭৩ সালে ‘ইয়ে করে বিয়ে’ দিয়ে চলচ্চিত্রাঙ্গনে যাত্রা শুরু করেন। এই চলচ্চিত্রের পরিচালক আবদুল্লাহ ইউসুফ ইমাম তার নাম রাখলেন ‘বুলবুল’। তিনি স্মরণীয় হয়ে থাকবেন সীমানা পেরিয়ে, দেবদাস, রূপালী সৈকত, মহানায়ক এবং জীবন নিয়ে জুয়া ছবির জন্য।

তাঁর অন্যান্য উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল — ‘পুরস্কার’, ‘সোহাগ’, ‘বৌরানী’, ‘ঘর সংসার’, ‘বধূ বিদায়’, ‘ছোট মা’, ‘আরাধনা’, ‘সঙ্গিনী’, ‘সময় কথা বলে’, ‘স্মৃতি তুমি বেদনা’, ‘শেষ উত্তর’, ‘স্বামী’, ‘ওয়াদা’, ‘গাঙচিল’, ‘কলমিলতা’, ‘জন্ম থেকে জ্বলছি’, ‘ভালো মানুষ’, ‘বদনাম’, ‘দুই জীবন’, ‘দিপু নাম্বার টু’, ‘ফেরারি বসন্ত’, ‘দ্য ফাদার’, ‘রাজলক্ষ্মী-শ্রীকান্ত’ প্রভৃতি। তার অভিনীত সর্বশেষ চলচ্চিত্র ‘পরম প্রিয়’।

অভিনয়ের জন্য বুলবুল আহমেদ তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছেন। ১৯৭৭ সালে ‘সীমানা পেরিয়ে’, ১৯৭৮ সালে ‘বধূ বিদায়’, ও ১৯৮০ সালে ‘শেষ উত্তর’ ছবির জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।

বুলবুল আহমেদের জন্ম ১৯৪১ সালে পুরান ঢাকার আগামসিহ লেনে। তাঁর প্রকৃত নাম তাবারক আহমেদ। বাবা-মা আদর করে ডাকতেন ‘বুলবুল’। বাবা মায়ের আট সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন অষ্টম।

বুলবুল আহমেদের স্ত্রী ডেইজি আহমেদ। এই দম্পতির তিন সন্তানেরা হলেন – মেয়ে ঐন্দ্রিলা ও তিলোত্তমা এবং ছেলে শুভ।

জনপ্রিয় এই তারকা ২০১০ সালের ১৪ জুলাই হার্ট অ্যাটাকের পর তাকে ঢাকার একটি হাসপাতালে নেয়ার পর ইন্তেকাল করেন। ৭১ বছর বয়সী বুলবুল আহমেদ দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগ এবং উচ্চ রক্তচাপে ভুগছিলেন।

 

উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র

ব্যক্তিগত তথ্যাবলি

পুরো নাম তাবারক আহমেদ
ডাকনাম বুলবুল
জন্ম তারিখ সেপ্টেম্বর ১৫, ১৯৪১
মৃত্যু তারিখ জুলাই ১৪, ২০১০
জন্মস্থান আগামসি লেন, পুরান ঢাকা।

পুরষ্কার

পুরষ্কার বছর ফলাফল বিভাগ/গ্রহীতা চলচ্চিত্র
জয়ী শ্রেষ্ঠ অভিনেতা সীমানা পেরিয়ে