তারিক আনাম খান

বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেতা এবং নাট্যনির্দেশক তারিক আনাম খান। মঞ্চ, টেলিভিশন আর চলচ্চিত্র সব খানেই তাঁর সরব উপস্থিতি। ট্রিমড করা ‘ট্রেড মার্ক’ শ্মশ্রুমণ্ডিত চেহারা তাঁকে দিয়েছে অনেক জনপ্রিয়তা। 

পারিবারিক আবহের কারণেই তারিক আনাম খান সংস্কৃতি জগতে প্রবেশ করার ব্যাপারে অনুপ্রেরণা পান। সাতক্ষীরায় অসাম্প্রদায়িক পরিবেশও তাকে প্রভাবিত করে। তাছাড়া কলকাতা নিকটের শহর হওয়ার কারণে তিনি বইপত্র, নাটক ইত্যাদির সংস্পর্শে ছিলেন।

বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী হওয়ার কারণে তিনি পাইলট বা ইঞ্জিনিয়ার হবেন এরকম আশা করেছিলেন। স্বাধীনতার সময়ে তিনি নয় নাম্বার সেক্টরের বিভিন্ন ক্যাম্পে নাটক করেছেন। এ সময়েই নাটকের প্রতি তার আগ্রহ বৃদ্ধি পায়। পরবর্তীতে তিনি সরকারী বৃত্তি পেয়ে দিল্লী ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামায় উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে গমন করেন। দিল্লীতে পড়াশোনাই তাকে অভিনয়কে পেশা হিসেবে বেছে নেয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করে।

দিল্লীতে পড়াশোনা শেষ করে আসার পর তারিক আনাম খান কিছু চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এর মাঝে ঘুড্ডি, লাল সবুজের পালা, সুরুজ মিয়া অন্যতম। বাণিজ্যিক ধারার চলচ্চিত্রে নিজেকে মানিয়ে নিতে না পারার কারণেই তিনি বাণিজ্যিক চলচ্চিত্র থেকে একটু দুরত্ব বজায় রেখেছেন এবং বেছে বেছে কাজ করেছেন। তিনি চলচ্চিত্রের তুলনায় মঞ্চকে বেশি পছন্দ করেন বলে জানিয়েছেন। তাছাড়া বিজ্ঞাপন প্রতিষ্ঠান স্থাপন এবং বিজ্ঞাপন নির্মানে জড়িয়ে পড়ার কারণেও তিনি চলচ্চিত্র থেকে দূরে থেকেছেন।

১৯৯০ সালের ১১ অক্টোবর তিনি তার নাটকের প্রতিষ্ঠান নাট্যকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন।

তারিক আনাম বেশ ফ্যাশন সচেতন। তিনি নিয়মিত হাতে ঘড়ি পরেন এবং তার ট্রেন্ডি ঘড়ি পড়তে ভালো লাগে। রোলেক্স ও টাইটানের ঘড়ি পরেন তিনি। পোশাকে তার আলাদা করে কোনো রঙের প্রতি দুর্বলতা নেই। সব রংই ভালো লাগে। তবে শার্টের ভেতরে চেক বেশি পছন্দ করেন।

চেক শার্টের প্রতি যে তিনি কতটা দুর্বল, তা বোঝা যায় তাঁর শার্টের সংগ্রহ দেখে। অফিসে সভা থাকলে শার্টের ওপর স্যুট, টাই আর জুতা পরেন। মাঝেমধ্যে পরেন প্রিন্স কোটও। এ ছাড়া সন্ধ্যার যেকোনো অনুষ্ঠানে বেশির ভাগ সময় পাঞ্জাবিই বেছে নেন। দেশের বাইরে ভারত থেকে কেনেন রং-বেরঙের পাঞ্জাবি। শুটিং স্পটে তো অনেক সময় থ্রি কোয়ার্টারও পরা হয়। সঙ্গে হাফ হাতা শার্ট অথবা টি-শার্ট। বাসার ভেতরে চপ্পল পরেই কাটে।

তারিক আনাম খানের সুগন্ধির প্রতি আছে আলাদা দুর্বলতা। তাই দেশের বাইরে গেলেই কিনে আনেন নানা ব্রান্ডের সুগন্ধি। আরমানি, হুগো বস, ড্রাক্কার ইত্যাদি ব্র্যান্ডের সুগন্ধিই বেশি ব্যবহার করেন।

দুই হাতে দুটি আলাদা পাথরের আংটি পরেন সারাক্ষণ। একটি স্টার রুবি, আরেকটি গার্নেটের। পছন্দের শার্টের ব্র্যান্ডে আছে মার্কস অ্যান্ড স্পেনসার সবার ওপর। প্যান্টও তা-ই। নিজের মতো করেই ঘরের ভেতরটা সাজিয়েছেন নানা ধরনের সামগ্রী দিয়ে। তবে এখানে নিজের ভালোবাসার মানুষটার অবদানই বেশি।

তারিক আনাম খান টিভির নাটক ও অনুষ্ঠান নির্মাতাদের সংগঠন টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন পরপর দুটো মেয়াদে।

ব্রিটিশ কাউন্সিলের সাথে মিলে প্রযোজনায় শেক্সপিয়রের নাটক ম্যাকবেথে কাজ করতে গিয়ে নিমা রহমানের সাথে তার সম্পর্ক তৈরী হয়। পরবর্তীতে তাকেই তিনি বিয়ে করেন এবং এখনো সংসার করে যাচ্ছেন।

 

উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র

ব্যক্তিগত তথ্যাবলি

পুরো নাম তারিক আনাম খান