সিমলা

প্রথম চলচ্চিত্রে অভিনয় করেই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছেন এমন স্বল্প অভিনেতা-অভিনেত্রীর মধ্যে সিমলা (Shimla) অন্যতম। শহীদুল ইসলাম খোকন পরিচালিত ম্যাডাম ফুলি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে বাংলা চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু করেন সিমলা ১৯৯৯ সালে। প্রথম ছবির এই সাফল্যে তাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয় নি।

সিমলা চলচ্চিত্রে আসেন গীতিকার-সুরকার মিল্টন খন্দকারের মাধ্যমে। সিমলা মিল্টন খন্দকারের চাচাতো বোন, তিনিই পরিচালক শহীদুল ইসলাম খোকনের সাথে সিমলার পরিচয় করিয়ে দেন। খোকন তার পরপর তিনটি চলচ্চিত্রে সিমলাকে কাস্ট করেন। এগুলো হল ম্যাডাম ফুলি, পাগলা ঘন্টি এবং বওয়া। তৃতীয় চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয় নি।

চলচ্চিত্রে আগমনের আগে সিমলার অভিনয়কেন্দ্রিক কোন প্রশিক্ষণ বা অভিজ্ঞতা না থাকলেও শুধুমাত্র আগ্রহ আর প্রচেষ্টার দ্বারা তিনি চলচ্চিত্রে নিজের ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে সক্ষম হন। ২০১৩ সালের জুন মাসে কোলকাতায় ‘সমাধি’ চলচ্চিত্রে তিনি মুম্বাইয়ের তারকা অভিনেতা গোবিন্দের বিপরীতে অভিনয় করেন। কোলকাতার সংগীতকার বাপ্পী লাহিড়ীর মাধ্যমে গোবিন্দে বিপরীতে কাজ করার সুযোগ পান বলে এক সাক্ষাতকারে জানিয়েছিলেন সিমলা।

চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী হলেও সিমলা টিভি নাটক এবং বিজ্ঞাপনে অভিনয় করেছেন। তিন পুরুষ, ফ্ল্যাট নং ৪০ ইত্যাদি তার অভিনীত নাটক।

সিমলার শৈশব কৈশোর কেটেছে ঝিনাইদহের শৈলকূপায়। শৈলকূপা গার্লস স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে তিনি শৈলকূপা সরকারী কলেজে উচ্চমাধ্যমিকে ভর্তি হন। কিন্তু দ্বিতীয় বর্ষে পড়ার সময়ই চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন বলে পড়াশোনার ইতি ঘটে।

সিমলার বাবা প্রয়ত আব্দুল মাজেদ একজন ব্যবসায়ী ছিলেন। মা একজন গৃহিণী। ৬ ভাই ও ৫ বোনের মধ্যে সিমলা সবার ছোট।

 

ব্যক্তিগত তথ্যাবলি

ডাকনাম সিমলা
জন্ম তারিখ এপ্রিল ১২, ১৯৮০
জন্মস্থান শৈলকূপা, ঝিনাইদহ।