সূর্য দীঘল বাড়ী ()

৮.০
আপনার রেটিঙঃ
- / ১০ X
রেটিঙঃ ৮.০/১০, ভোট দিয়েছেন ৯ জন | সমালোচক রেটিঙঃ
দর্শক মন্তব্যঃ ১ টি

কাহিনী সংক্ষেপ

বাংলা ১৯৫০ সনে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে অবিভুক্ত ভারতের বাংলায় ব্যাবসাসীদের কারসাজিতে ‘পঞ্চাশের আকাল’ নামে যে দুর্ভিক্ষ হয়েছিল তটে বহু লক্ষ দরিদ্র মানুষ প্রাণ হারায়। যারা কোনমতে শহরের লঙ্গরখানায় পাত পেতে বাঁচতে পেরেছিল তাদেরই একজন একালের সময় স্বামী পরিত্যক্ত জয়গুন। সঙ্গে তার মৃত প্রথম স্বামীর ঘরের ছেলে ও দ্বিতীয় স্বামীর গোরের মেয়ে। আরো আছে মৃত ভাইয়ের স্ত্রী-পুত্র। তারা গ্রামে ফিরে এসে এমন এক খন্ড জমিতে ঘর তৈরী করে যেটির অপয়া ভিতে বলে পরিচিতি ছিল। জীবনের যুদ্ধে যখন সে প্রানপন লড়ছে তখর তর প্রতি গায়ের মরলের দৃষ্টি পড়ে। দ্বিতীয় স্বামীও তাকে আবার ঘরে তুলতে চায়। সে কারো প্রস্তাবেই সে দেয় না। কিন্তু এ দুজনের সাক্ষাত ঘটে এবং মরল তার প্রতিযোগীকে হত্যা করে। ঘটনার একমাত্র দর্শক হিসেবে জয়্গুনকেও মূল্য দিতে হয় অন্যভাবে। (Surjo Dighol Bari)

প্রধান অভিনেতা - অভিনেত্রী

ডলি আনোয়ার জয়গুন
রওশন জামিল শফির মা
no image সিতারা বেগম লালুর মা
no image সুফিয়া আঞ্জুমন
এটিএম শামসুজ্জামান জোবেদ ফকির
কেরামত মাওলা করিম বক্স
সকল কলাকুশলী

ছবি এবং ভিডিও

পুরষ্কার

পুরষ্কার বছর ফলাফল বিভাগ/গ্রহীতা
জয়ী শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র

জয়ী শ্রেষ্ঠ পরিচালক

শেখ নিয়ামত আলী , মসিহউদ্দিন শাকের

জয়ী শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী

ডলি আনোয়ার

জয়ী শ্রেষ্ঠ সম্পাদক

সাইদুল আনাম টুটুল

জয়ী শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার

শেখ নিয়ামত আলী , মসিহউদ্দিন শাকের

জয়ী শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক

আনোয়ার হোসেন

জয়ী শ্রেষ্ঠ শিশু শিল্পী

সজীব , ইলোরা গহর

জয়ী বিশেষ পুরস্কার

লেলিন

প্রধান কলাকুশলী

কাহিনী আবু ইসহাক
চিত্রনাট্য শেখ নিয়ামত আলী, মসিহউদ্দিন শাকের
সংলাপ মসিহউদ্দিন শাকের
সঙ্গীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলী
সুরকার -
গীতিকার -
সকল কলাকুশলী

অন্যান্য তথ্যাবলী

মুক্তির তারিখ ৩০ ডিসেম্বর, ১৯৭৯
ফরম্যাট ৩৫ মি.মি.
রং রঙিন
নির্মাণ ব্যয় ২.৫ লক্ষ টাকা
ইংরেজী নাম The Ominous House
দৈর্ঘ্য (রান টাইম) ১৩২ মিনিট
দেশ বাংলাদেশ
ভাষা বাংলা

ট্রিভিয়া

  • সূর্য দীঘল বাড়ি নির্মানের সময় আর্থিক সংকটে পড়েন নির্মাতারা। ফলে ছবিটি পরিবেশকদের কাছে বিক্রি করে দিতে হয়। কিন্তু ব্যবসায়িকভাবে সফল না হওয়ায় ছবিটি শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভে স্থান পায়।
  • ফারুখ ফয়সলকে দেওয়া এক দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে ডলি ইব্রাহিম বলেছিলেন, 'জয়গুন চরিত্রের সঙ্গে একাত্ম হতে আমার এতটুকু অসুবিধা হয়নি। আমার আর জয়গুনের সমস্যা তো একই জায়গায়। কেবল প্রেক্ষাপট আলাদা।'
সব ট্রিভিয়া দেখুন →

১টি রিভিউ

রিভিউ লিখুন

আরও ছবি