চার অক্ষরে ভালবাসা ()

৫.৫
আপনার রেটিঙঃ
- / ১০ X
রেটিঙঃ ৫.৫/১০, ভোট দিয়েছেন ২ জন | সমালোচক রেটিঙঃ
দর্শক মন্তব্যঃ ১ টি

কাহিনী সংক্ষেপ

নিরব অনাথ ছেলে। পপিদের বাড়িতে আশ্রয় পেয়ে সেখানেই বেড়ে ওঠেন তিনি। একপর্যায়ে তাদের বিয়ে হয়। কিন্তু পপি ভালোবাসেন আরেকজনকে। (Char Okkhore Bhalobasha)

প্রধান অভিনেতা - অভিনেত্রী

পপি ভাবনা
ফেরদৌস
নিরব বাদল
সূচরিতা
কাজী হায়াৎ
সকল কলাকুশলী

ছবি এবং ভিডিও

প্রধান কলাকুশলী

কাহিনী কমল সরকার
চিত্রনাট্য কমল সরকার
সংলাপ কমল সরকার
সঙ্গীত পরিচালক ইমন সাহা
সুরকার -
গীতিকার কবির বকুল
সকল কলাকুশলী

অন্যান্য তথ্যাবলী

মুক্তির তারিখ ২৮ নভেম্বর, ২০১৪
ফরম্যাট ডিজিটাল
রং রঙিন
দেশ বাংলাদেশ
ভাষা বাংলা
শ্যুটিং লোকেশন কক্সবাজার, হোতাপাড়া, সাভার

ট্রিভিয়া

  • ২০১২ সালে গার্মেন্টস কন্যা মুক্তির প্রায় দুই বছর পর আবার পর্দায় আসলেন পপি এই ছবির মাধ্যমে। নিরবও প্রায় দেড় বছর পর পর্দায় আসলেন। নিরবের শেষ ছবি ছিল শফিকুল ইসলাম সোহেল পরিচালিত ‘তোমার মাঝে আমি’।
সব ট্রিভিয়া দেখুন →

১টি রিভিউ

  1. গ্রামের ছেলে ফেরদৌসের বাসায় ছোটবেলা থেকে ভাই/বন্ধু হিসেবে বড় হয় অনাথ ছেলে নীরব। ফেরদৌস ভালোবাসে পাশের গ্রামের মেয়ে পপিকে। ছোটবেলা থেকে ফেরদৌসের পছন্দের সব কিছুই কেড়ে নেয় নীরব। এই ভয়ে পপিকে ভালোবাসার কথা নীরবের কাছে গোপণ রাখে ফেরদৌস। ফেরদৌস পড়ালেখার জন্য ঢাকায় চলে আসে। এক রাতে দুশ্চরিত্র শিবা শানুর চক্রান্তে পপির চরিত্রে কলঙ্ক দেয় গ্রামবাসী। এমতাবস্থায় পপিকে কলঙ্ক থেকে উদ্ধারের জন্য নীরব বিয়ে করে ফেলে পপিকে। বন্ধুর বিয়ের খবর পেয়ে দ্রুত ঢাকা থেকে গ্রামে ফেরে ফেরদৌস। নিজের প্রেমিকাকে বন্ধুর স্ত্রীর বেশে দেখে ফেরদৌসের মাথায় যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়ে। এই দুঃখ ভুলে থাকার জন্য সে আশ্রয় নেয় মদ আর বাজারের এক মেয়ে বিনোদিনীর। এভাবেই এগিয়ে যায় “চার অক্ষরের ভালোবাসা” সিনেমার গল্প।

রিভিউ লিখুন

আরও ছবি